[gtranslate]

বাকৃবিতে ‘গাভীপালন ও স্বাস্থ ব্যবস্থাপনা’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত।

প্রকাশিতঃ ৮:০১ অপরাহ্ণ | ডিসেম্বর ২১, ২০১৯


,দীন মোহাম্মদ দীনু।।
জুনোটিক রোগে সবচেয়ে বেশি হুমকির মুখে থাকেন খামারিরা কারণ তারা সরাসরি খামারের সংস্পর্শে থাকে। এজন্য খামারীদের বেশি সচেতন হতে হবে।গরুর স্বাস্থ্য দেখেই সে দেশের মানুষের স্বাস্থ্য সহজে অনুমান করা যায়। বাকৃবিতে এক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. নাজিম আহমাদ এসব কথা বলেন।
বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে মাইক্রোবায়োলজি এন্ড হাইজিন বিভাগের ব্যবস্থাপনায় এবং কৃষি গবেষনা ফাউন্ডেশন এর TF45-L 17 প্রকল্পের অর্থায়নে ‘গাভীপালন ও স্বাস্থ ব্যবস্থাপনা’ শীর্ষক খামারীদের দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালা ২১ ডিসেম্বর ২০১৯ শনিবার ভেটেরিনারি অনুষদে অনুষ্ঠিত হয়।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভেটেরিনারি অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. নাজিম আহমাদ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডাঃ শেখ শাহীনুর ইসলাম, ডি এল ও, ডিএলএস । অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন উক্ত প্রকল্পের পিএইচ ডি ফেলো ডাঃ নাজমুল হক।
অনুষ্ঠানে ডাঃ আরিফ এর সঞ্চালনায় সভাপতিত্ব করেন TF45-L 17 প্রকল্প পরিচালক এবং কোঅর্ডিনেটর প্রফেসর ড. এস. এম. লুৎফুল কবির।
কর্মশালায় প্রকল্প পরিচালক এন্ড কো-অর্ডিনেটর অধ্যাপক ড. এস এম লুৎফুল কবির বলেন, আমরা এই প্রকল্পের অধীনে দুটি জুনোটিক (প্রাণি থেকে মানুষে সংক্রামিত হয়) রোগ নিয়ে কাজ করছি। এজন্য আমরা ময়মনসিংহ ও ঢাকা জেলা হতে ৩০০ খামারীর তালিকা করেছি। সেসব খামার পরিদর্শন করেছি এবং নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করেছি। খামারিদের সচেতনতা করেছি। প্রকল্পের অংশ হিসেবে খামারীদের সচেতনতা সৃষ্টিতে তাদের নিয়ে প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়েছে। প্রশিক্ষণে খামারিদেরকে গাভী পালনের বৈজ্ঞানিক ব্যবস্থাপনা ও খামার পারিচালনা সর্ম্পকে জানানো হবে।
অনুষ্ঠিত প্রশিক্ষণ কর্মশালায় ময়মনসিংহ জেলার বিভিন্ন উপজেলার ২৫ (পচিশ) জন গরু খামারীদের গরুর সংক্রামক রোগ সম্মন্ধে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।।